লংগদুতে ১৪৪ ধারা, নিহত ১, গ্রেপ্তার ৩

রাঙ্গামাটি জেলাধীন লংগদু উপজেলার সদর ইউনিয়নে তিনটিলা গ্রামে জ্বলছে পাহাড়িদের ঘরবাড়ী। যুবলীগ নেতা মোঃ নুরুল ইসলাম নয়নের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে আদিবাসী পাহাড়িদের শতাধিক বসতবাড়িতে অগ্নিসংযোগ দিয়েছে সেটেলার বাঙালীরা। তারা তিনটিলা ছাড়াও উপজেলা সদর ও মানিকজোর এলাকার বহু বাড়িঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুনে পুড়ে মারা গেছেন গুণমালা চাকমা ৬৫) এক আদিবাসী বৃদ্ধ নারী । এ সময় আতঙ্কে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যায় অন্যত্র পালিয়ে যায় অত্র এলাকার বাসিন্দারা। ঘটনার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রের জন্য প্রশাসন অত্র এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। বিকালে অনুষ্ঠিত হয় সর্বদলীয় সভা। সভায় সকলে শান্ত থাকার আহব্বান জানানো হয়। জানানো হয় ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা করে ক্ষতিপূরন দেওয়া হবে।

এদিকে পাহাড়িদের ওপর হামলার ঘটনায় মো. সবুজ, মো. খায়ের ও মামুন নামে তিন জন সেটলার বাঙ্গালিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

সুত্র জানায়, ২ জুন ২০১৭ স্থানীয় সেনাবাহিনী ও পুলিশ কর্তৃপক্ষ নুরুল ইসলাম নয়ন নামে একজন সেটেলার বাঙালি মোটর সাইকেল চালকের লাশ নিয়ে রাঙ্গামাটি জেলার লংগদু উপজেলায় বাত্যা পাড়া থেকে লংগদু সদরে সেটেলার বাঙালিদেরকে মিছিল করার অনুমতি দিয়েছে।  মিছিলটি আনুমানিক ৯টার দিকে শুরু হয়ে ১০টার দিকে লংগদু সদরে পৌঁছেছে। লংগদু সদরে পৌঁছার পর জনসংহতি সমিতির অফিসসহ পাহাড়িদের ঘরবাড়ি ও দোকানপাটে ভাংচুর ও আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। আতঙ্কে সকলেই পাশ্ববতী মানিকজুরছড়ায় সবাই নিরাপদ স্থানে সরে গেছে।

এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে ২ জুন ২০১৭ বিকেলে খাগড়াছড়িতে বিক্ষোপ মিছিল ও মানব বন্ধন করেছে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ। তাছাড়া শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে বিক্ষোপ মিছিল করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন। দুপুরে চট্টগ্রামে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ ও গনতান্ত্রিক যুব ফোরামের যৌথ উদ্যোগে প্রেস ক্লাবের সামনে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!