রাজশাহী বিম্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরিক্ষায় সাম্প্রদায়িক উস্কানি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষপূর্ণ প্রশ্ন রাখা হয়েছে । গত বুধবার (২৫ অক্টোবর) বিকালে অনুষ্ঠিত চারুকলা অনুষদের অধীনে ‘আই’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ওই পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে ৮০টি প্রশ্ন ছিল। এরমধ্যে দুটি প্রশ্নে চরম সাম্প্রদায়িক উস্কানি লক্ষ্য করা গেছে।

প্রশ্নপত্রে একটি প্রশ্নে ছিল- ‘পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ ধর্মগ্রন্থের নাম কী?’ অপশন ছিল- (ক) পবিত্র কোরআন শরীফ (খ) পবিত্র বাইবেল (গ) পবিত্র ইঞ্জিল (ঘ) গীতা।

অন্য প্রশ্নটি ছিল- ‘মুসলমান রোহিঙ্গাদের ওপর মায়ানমারের সেনাবাহিনী ও বৌদ্ধধর্মালম্বীরা সশস্ত্র হামলা চালায় কত তারিখে?’ অপশন ছিল (ক) ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ (খ) ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ (গ) ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ (ঘ) ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরিক্ষায় এমন সাম্প্রদায়িক প্রশ্ন রাখায় দেবজ্যোতি দেবু নামের একজন ফেইসুকে মন্তব্য করেছেন, ৪৬ নং প্রশ্নে ‘মুসলমান’ এবং ‘বৌদ্ধ’ দুই ধর্মাবলম্বীদের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শেখানো হচ্ছে বৌদ্ধরা মুসলমানদের হত্যা করছে।

৭৬ নং প্রশ্ন সর্ম্পকে তিনি লিখেছেন, কৌশলে অমুসলিমদের দিয়ে স্বীকার করতে বাধ্য করা হচ্ছে যে সর্বশ্রেষ্ঠ গ্রন্থ কোরান। এই প্রশ্নের উত্তরে যদি কেউ গীতা, বাইবেলকে সর্বশ্রেষ্ঠ বলে চিহ্নিত করে তাহলে কি সেটাকে ভুল বলে দাবি করার কোন অধিকার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আছে? কোরানই যে সর্বশ্রেষ্ঠ গ্রন্থ তার স্বীকৃতি কোথায় পেলেন তারা? তাছাড়া সকলের কাছেই তার ধর্মগ্রন্থ সর্বশ্রেষ্ঠ। তাহলে এই প্রশ্নের উত্তর নির্ধারিত হবে কিসের ভিত্তিতে? এমন বিতর্কিত প্রশ্ন উত্থাপনের অধিকার তাদের কে দিয়েছে? এটা কি কারো ধর্মানুভূতিতে আঘাত দেয়া নয়?

তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নপত্রে এমন সাম্প্রদায়িক প্রশ্ন রাখার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন রাখেন।

এদিকে বাংলা ট্রিবিউনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি আব্দুল মজিদ অন্তর এ বিষয়ে বলেছেন, ‘শুধু একটি ধর্মীয় বিশ্বাসকে ঊর্ধ্বে রেখে অন্য ধর্মীয় বিশ্বাসকে ছোট করার অধিকার তাদের কে দিয়েছে? এই রকম বিদ্বেষমূলক সাম্প্রদায়িক প্রশ্ন করে চারুকলাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে কলুষিত করা হচ্ছে।  আমরা এই ধরনের জঘন্য কাজের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

রাবি বৈপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায় বলেছেন, ‘রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা অনুষদের ভর্তি পরীক্ষায় যে দুটি প্রশ্ন করা হয়েছে, তা দিয়েই শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং সাম্প্রদায়িকতার পরিপূর্ণ হিসেব করা যায়।’

বাংলা ট্রিবিউন সূত্রে জানানো হয়েছে চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান এ ধরনের প্রশ্ন রাখা উচিত হয়নি স্বীকার করে বিষয়টি অনিচ্ছাকৃতভাবে হয়েছে বলে দাবী করেছেন। তাই এই দুইটি প্রশ্নের নম্বর সব পরীক্ষার্থীরা পাবেন বলে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’এমন জানিয়েছে বাংলা ট্রিবিউন।

সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!