মিয়ানমারের বৌদ্ধরা বৌদ্ধ ধর্মের কলঙ্ক! পি. আর বড়ুয়াকে নিয়ে বানোয়াট খবর প্রচার

একান্ত সাক্ষাৎকারে পি. আর বড়ুয়া `ওরা বৌদ্ধ ধর্মের কলঙ্ক’শিরোনামে মিথ্যা ও বানোয়াট খবর প্রচার করছে আমাদেরসময়.কম সহ একাধিক মিডিয়া।

সম্প্রতি মিয়ানমারের অভ্যন্তরীন সংঘাত ও সংঘর্ষ নিয়ে আমাদেরসময়.কম স্টাফ রিপোর্টার ফারুক আলম এ সাক্ষাৎকারটি নিয়েছে বলে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

সাক্ষাৎকার প্রতিবেদনে মি. বড়ুয়ার উদ্ধৃতি দিয়ে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা সংঘাতে ঢালাওভাবে বৌদ্ধ ও বৌদ্ধ ভিক্ষুদের সম্পৃক্ততার কথা প্রচার করা হচ্ছে।প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ড চালিয়ে তাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী, সীমান্ত পুলিশ এবং বৌদ্ধ ভিক্ষুরা।

মিয়ানমারের অভ্যন্তরীন সংঘাতে ইসলাম বা বৌদ্ধধর্মের কোন সর্ম্পক না থকেলেও এই সাক্ষাতকার প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে মি. বড়ুয়া বলেছেন, মিয়ানমারে বৌদ্ধ ভিক্ষুরা রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে।

এই সাক্ষাতকারের ব্যাপারে দি বুড্ডিস্ট টাইমস পক্ষ থেকে মি. বড়ুয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই সাক্ষাৎকার সরাসরি অস্বীকার করেছেন।তিনি বলেছেন, এ ব্যাপারে তিনি কোন সময় কাউকে সাক্ষাতকার দেন নি। এব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না।

এমন বৌদ্ধ বিদ্বেষ প্রচার বন্ধে এধরণের মিথ্যা বানোয়াত প্রতিবেদন প্রচারকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দি বুড্ডিস্ট টাইমস এর পক্ষ থেকে মি. বড়ুয়াকে অনুরোধ করো হয়েছে।

এদিকে গত ২৮ আগস্ট আমাদেরসময়ডটবিজ এ প্রকাশিত সাক্ষাতকারের উদ্ধৃতি দিয়ে ইতিমধ্যে একাধিক গণমাধ্যমে ঢালাওভাবে বৌদ্ধধর্ম, বৌদ্ধ ভিক্ষু ও বৌদ্ধদের নিয়ে চরম বিদ্বেষ প্রচার করছে।

মিয়ানমারের অভ্যন্তরীন সংঘাতে ইসলাম বা বৌদ্ধধর্মের কোন সর্ম্পক না থকেলেও এধরণের মিথ্যা বানোয়াট সংবাদের কারণে দেশের ধর্মীয় সম্প্রীতির পরিবেশ বিনষ্ট করার অপচেষ্টা চলাচ্ছে বলে বৌদ্ধরা মনে করে।

বাংলাদেশের বৌদ্ধরা দাবী করেন মিয়ানমারের জনগণের সাথে বাংলাদেশের জনগণ বা বৌদ্ধদের উল্লেখযোগ্য কোন সর্ম্পক নেই।শুধু মাত্র ধর্মীয় পরিচয়ে রহিঙ্গাদের সাথে এদেশের মুসলিমদের যেমন ইসলাম তেমনি সে দেশের বৌদ্ধধর্মের সাথে এ দেশের বৌদ্ধধর্ম।

সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমারের অভ্যন্তরীন সংঘাতে ইসলাম বা বৌদ্ধ ধর্মের কোন সর্ম্পক নেই।

এক পরিসংখ্যান মতে মিয়ানমারে মোট জনসংখ্যার শতকরা ৪.০৩ ভাগ মুসলিম জনগোষ্ঠী। মিয়ানমারের মোট ২২ লাখ মুসলিম এর মধ্যে ১৫ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম।

মিয়ানমারের ৭ লাখ মুসলিমের কোন সমস্যা হচ্ছে না, ১৫ লাখ রোহিঙ্গার কেন সমস্যা? তার কারণ মিয়ানমারের এই সংঘাত ধর্মীয় সংঘাত নয়, সন্ত্রাসবাদের সাথে মিয়ানমার প্রসাশনের সংঘর্ষ। সেখানে ধর্মের কোন সর্ম্পক নেই।

সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!