মাস ব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসবে মুখরিত হয়ে উঠেছে পার্বত্যাঞ্চল

সুপ্রিয় চাকমা শুভ, রাঙামাটি জেলা প্রতিনিধি: দেশের বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মীয় অনুষ্ঠান কঠিন চীবর দানোৎসবেমুখরিত হয়ে উঠেছে তিন পার্বত্যাঞ্চল। ৬ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে মাসব্যাপী চলবে এই উৎসব। এই অনুষ্ঠানে মূলত বৌদ্ধ ভিক্ষুদেরকে ত্রি-চীবর দান করা হয়ে থাকে।

উৎসবকে ঘিরে পার্বত্যাঞ্চল বৌদ্ধ বিহারগুলো বিরাজ করছে সাজসাজ রব। পাহাড়ের বিভিন্ন বিহারে ধারাবাহিকভাবে এ উৎসব পালিত হবে। ব্যস্ততার সীমা নেই বিহারের কর্মরত ভিক্ষু-শ্রামণ সহ দায়ক-দায়িকাদের। প্রতিদিন ভিক্ষু সংঘের আগমনে মুখরিত হয়ে উঠে বৌদ্ধ বিহার গুলো। দানোত্তম কঠিন চীবরকে ঘিরে সারারাত ব্যাপী ধর্মীয় নাটক-গান পরিবেশনের জন্য আয়োজন করা হচ্ছে দর্শনার্থীদের জন্য।

‘কঠিন চীবর দান গৌতম বুদ্ধের সময় থেকে প্রচলিত হয়ে আসছে। ‘চীবর দান’ কথাটির সঙ্গে ‘কঠিন’ শব্দটি যুক্ত হওয়ার কারণ সম্পর্কে  মহাবগ্গ গ্রন্থে বলা হয়েছে: যেদিন চীবর দান করা হবে সেদিনের সূর্যোদয় থেকে পরবর্তী সূর্যোদয় পর্যন্ত সময়ের মধ্যে সুতাকাটা, কাপড় বোনা, কাপড় কাটা, সেলাই ও রঙ করা, ধৌত করা ও শুকানো এ কাজগুলি সম্পন্ন করে উক্ত সময়ের মধ্যেই এ চীবর ভিক্ষুসংঘকে দান করতে হবে। এ ছাড়া আরও কিছু নিয়ম-কানুন আছে, যা দাতা এবং গ্রহীতা উভয়ের জন্যই পালন করা বেশ কঠিন। তাই এ অনুষ্ঠানের নাম হয়েছে কঠিন চীবর দান।

সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!