মাতৃভাষায় বই পাচ্ছে আদিবাসী শিশুরা

দেশের আদিবাসী জন গোষ্ঠী সমূহের নিজস্ব মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালু হচ্ছে। এরই মধ্যে নতুন পাঠ্যবই পৌছেঁ গেছে প্রতিটি স্কুলে। আজ ১লা জানুয়ারী অন্য বইগুলোর সাথে প্রাক প্রাথমিক শ্রেনীতে মাতৃভাষার বইগুলো বিতরন করা হবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

পার্বত্য অঞ্চলে চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা, তঞ্চঙ্গ্যা, খিয়াং, খুমি, বম, চাক, পাংখোয়া, রাখাইন এবং লুসাইসহ ১৩টি আদিবাসী জন গোষ্ঠীর বসবাস। পাবত্য জেলা সমূহের এসব আদিবাসী জনগোষ্ঠী নিজস্ব ভাষা থাকলেও স্কুলে মাতৃভাষায় শিক্ষার কোনো সুযোগ নেই। মাতৃভাষায় লেখাপড়ার সুযোগা না থাকায় জীবনের শুরুতেই অনেক শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়ে যায়। ২০১০সনে প্রনীত শিক্ষা নীতিতে আদিবাসী শিশুদের মাতৃভাষায় পড়ালেখা করার সুযোগের কথা বলা হলেও সে পরিকল্পনা আলোর মুখ দেখছে নতুন বছরে।

রাঙ্গামাটি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের তথ্য সূত্র থেকে জানা যায়, নতুন বছর জেলার ৬১৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪টি ভাষার উপর ১৫ হাজার ২৮১টি বই বিতরন করা হবে। এর মধ্যে চাকমা ১০ হাজার ৮২টি বই, মারমা ২ হাজার ১৬৫টি, ত্রিপুরা ২ হাজার ৫৮৩টি এবং সাদ্রি ভাষার ৩৮১টি বই বিতরন করা হবে।

পাঠ্য পুস্তক প্রনয়ন কমিটির সাথে জড়িত ও চাকমা ভাষার গবেষক প্রসন্ন কুমার চাকমা জানান, মাতৃভাষায় পাঠদানের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় স্কুলগুলোতে ছাত্র ছাত্রীদের ঝড়ে পড়ার হার কমে যাবে। ২০১০ সনের শিক্ষানীতির আলোকে ২০১৫ সন থেকে ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী শিশুদের মাতৃভাষায় বই প্রদানের কথা থাকলেও ২০১৭ সন থেকে চালু হচ্ছে। তার মতে নিজস্ব ভাষায় পাঠদান করলে শিশুরা স্কুলমুখী হবে।

সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!