বাংলাদেশে ৫ লক্ষ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ হওয়ার পরেও কেউ অভূক্ত থাকে নি -বৃষকেতু চাকমা

সুপ্রিয় চাকমা শুভ //নিজস্ব প্রতিবেদক//

বাংলাদেশে ৫ লক্ষ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ হওয়ার পরেও কেউ অভূক্ত থাকে নি । কেননা শিক্ষা,সংস্কৃতি,অর্থনৈতিক বিভিন্ন বিষয় সমূহ বাদেও বাংলাদেশ কৃষি খাতে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হওয়ার ফলে বাংলাদেশের খাদ্য গুদামে খাদ্য মজুদ থাকায় সারা দেশে যে বন্যা ও পাহাড় ধ্বস এবং রোহিঙ্গাদের অনুপ্রবেশ হয়েছে সেসব সমস্যা সমাধান করতে সক্ষম হয়েছে বর্তমান বাংলাদেশ সরকার। এমন মন্তব্য করেছেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব বৃষকেতু চাকমা। ২২শে জানুয়ারী বিকালে রাঙামাটি জেলা শাখার উদ্যোক্তা উন্নয়ন পরিষদ ও জাতীয় ক্ষুদ্র কুঠির শিল্প সমিতি (নাসিব)-বাংলাদেশ এর আয়োজনে ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের এর সহযোগিতায় তাঁতবস্ত্র ও হস্তশিল্প মেলা ২০১৮ এর শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে রাঙামাটি কুমার সুমিত রায় জিমনেসিয়াম মাঠ প্রাঙ্গণে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।তিনি আরো বলেন,পার্বত্য রাঙামাটির স্থানীয় শিল্পের বাজার জাত করণ ও স্থানীয় শিল্পের প্রচার লক্ষে রাঙামাটি জেলা পরষিদের আয়োজনে প্রতি বছর এই তাঁত বস্ত্র ও হস্তশিল্প মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় মাসব্যাপী এই তাঁত বস্ত্র ও হস্তশিল্প মেলা শুরু হতে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে আমরা যদি সবাই মিলে এক সাথে কাজ করি তবে সমগ্র পার্বত্য চট্টগ্রামে অর্থনৈতিক ভাবে সুবিধা ও উন্নয়ন সাধিত হবে। বাংলাদেশে যে সকল উন্নয়ন হচ্ছে সেসব বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকের কারনে এ সকল উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে। তিনি যদি আন্তরিক না হতেন তাহলে এসব কিছু করা কখনো সম্ভব হতো না। বাংলাদেশ সরকারের ভূমিকায় নিজ নিজ স্থানীয় শিল্পগুলো বাজার জাত করণ করে পার্বত্যাঞ্চলে অর্থনৈতিক উন্নয়ন হচ্ছে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০০৯ সাল থেকে হিসাব করলে বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক উন্নতি হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি জনাব সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল,রাঙামাটি রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা,রাঙামাটি জেলার নাসিব এর সভাপতি বিপ্লব চাকমা প্রমূখ। এছাড়া তাঁতবস্ত্র ও হস্তশিল্প মেলা ২০১৮ প্লটে অংশগ্রহণকারী প্লটের প্রতিনিধি সহ রাঙামাটির বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিকস মিডিয়ার সংবাদকর্মী উপস্থিত ছিলেন। তাঁতবস্ত্র ও হস্তশিল্প মেলায় মোট ৬৪টি প্লটে প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেছে। এই মেলা মাসব্যাপী চলতে থাকবে বলে জানা যায়।
অনুষ্ঠানের পরে ফিতা কেটে ও ফেস্টুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করা হয়। মেলার উদ্বোধনের পর রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন।
উল্লেখ্য, উদ্যোক্তা উন্নয়নের ধারাবাহিক অংশ হিসেবে এ বছরও উদ্দ্যেক্তা উন্নয়ন পরিষদ ও জাতীয় ক্ষুদ্র কৃঠির শিল্প সমিতি বাংলাদেশ (নাসিব) রাঙ্গামাটির’সহ দেশের বিভিন্ন স্থানের উদ্দ্যেক্তাদের পণ্য বাজারজাত ও প্রসারের লক্ষে রাঙ্গামাটিতে যে মেলার আয়োজন করেছে তাতে পন্যের প্রসারের পাশাপাশি স্থানীয় জনগনের বিনোদনের সুযোগ হবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন মেলার উদ্যোক্তারা।

সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!