চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড় ধসে নিহত ৭৫

চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামে টানা তিন দিনের বর্ষনে পাহাড় ধসে ও গাছ চাপায় ৭৫ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। উদ্ধার করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন দুইজন অফিসার সহ ৪ জন সেনাসদস্য। রাঙামাটির মানিকছড়ি এলাকায় পাহাড় ধসের ঘটনায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দুই কর্মকর্তাসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে বলে আন্তবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।
 
মঙ্গলবার ভোর থেকে বিকেল পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিস ও সেনা বাহিনীর সদস্যরা ৭৫ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে। এর মধ্যে রাঙ্গামাটিতে ৪৪, বান্দরবানে ৬ ও চট্টগ্রামে ২৫ জন নিহত হয়েছে। উদ্ধার কাজ এখনো চলছে। তবে বৃষ্টি কারণে উদ্ধার কাজ চালাতে তাদের বেগ পেতে হচ্ছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে।
 
মঙ্গলবার ভোরে বান্দরবানে পাহাড় ধসে তিন ভাই-বোন সহ ৬ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেন কামরুন নাহার বেগম (৪০), তার মেয়ে সুখিয়া বেগম(৮), রেবা ত্রিপুরা(২২) ও লেমুঝিরি আগাপাড়ার লাল মোহন বড়ুয়ার তিন ছেলে মেয়ে শুভ বড়ুয়া(৮), মিঠু বড়ুয়া(৬) ও লতা বড়ুয়া (৫)।
আমাদের রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি সুপ্রিয় চাকমা শুভ জানান রাঙামাটিতে টানা তিন দিন ধরে প্রবল বর্ষনের কারনে ১৩ ই জুন (মঙ্গলবার) রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন স্থানে পাহাড় ধ্বসে আহত শতাধিক ও ৪৪ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রাঙামাটি শহর ও অন্যান্য এলাকাতে প্রবল বর্ষণের ফলে পাহাড় ধ্বসে নিহত বাদেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পাহাড় ধ্বসের খবরটি জেনে তাৎক্ষনিক ভাবে রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিস, জেলা প্রশাসন, এলাকাবাসী সহ বিভিন্ন সংগঠন সহযোগিতায় এগিয়ে আছে।
নিহতদের মধ্য রাঙামাটি সদরে ১৯ জন, উপজেলার মধ্যে কাউখালী ৯ জন, কাপ্তাই ৫ জন, বিলাইছড়িতে ২ জন, জুরাছড়িতে ২ জনের মোট ৪৪ জনের মৃত্যুর সঠিক তথ্যটি বিকালে নিশ্চিত করেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মো: মানজারুল মান্নান। তবে এলাকাবাসীরাদের ধারনা নিহতদের সংখ্যা আরও বেড়ে যে যেতে পারে। কেননা মাটি চাপা অবস্থায় এখনও অনেকের লাশ পাওয়া যায় নি।
 
রাঙামাটি সদরের মানিকছড়ি এলাকায় পাহাড় ধসের ঘটনায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দুই কর্মকর্তাসহ চার জনের মৃত্যু হয়েছে বলে আন্তবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। পাহাড় ধসের ঘটনায় উদ্ধার অভিযানের মধ্যেই মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের মানিকছড়িতে সেনা ক্যাম্পের কাছে এই ঘটনা ঘটে। আইএসপিআরের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ রাশিদুল হাসান বলেন, “তারা সেখানে সড়কে উদ্ধার কাজের তদারকিতে ছিলেন। তার মধ্যেই আবার ধসের ঘটনা ঘটে। রাস্তা স্বাভাবিক করতে সেনা সদস্যরা যখন মাটি সরানোর কাজ করছিলেন, তখনই সকাল ৯টার দিকে ওই পাহাড়ে আরেকবার ধস নামে।”
রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মো: মানজারুল মান্নান প্রত্যেক নিহত পরিবারকে নগদ বিশ হাজার টাকা চাউল প্রদান করেন। এছাড়া রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ নিহত প্রত্যেক পরিবারকে নগদ বিশ হাজার টাকা সাহায্য প্রদান করেন।
 
এদিকে আজ মঙ্গলবার ভোরে চট্টগ্রামের চন্দনাইশ ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় পাহাড় ধসে একটি শিশুসহ ১৭ জন নিহত হয়েছেন। এখনও নিখোঁজ রয়েছেন একজন।
সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!