গৌতম বুদ্ধকে যদি মাত্র একবারের জন্য জীবিত পেতাম !

বিধান বড়ুয়া, উপল গোমেজ, নিত্যানন্দ চক্রবর্তী আর সায়েম ইশরাক যখন মায়ের পেটে ছিল, তখন তারা জানত না—পৃথিবীতে এসে তারা বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান, হিন্দু আর মুসলমান বলে পরিচিত হবে। অথচ তারা মায়ের পেট থেকে আলোতে উঁকি দিয়েই চিৎকার করে কেঁদে উঠেছিল, মানুষের বাচ্চারা যেভাবে কেঁদে ওঠে। তারপর দু-চার বছর যেতেই তারা বুঝতে পারল—তারা আসলে মানুষ। আশপাশে থাকা কুকুর, বিড়াল, হাঁস, মুরগি থেকে আলাদা।
 
আরো একটু বড় হয়ে তারা আরো বুঝতে পারল—এই আলাদা আলাদা ধর্মীয় পরিচিতিতে কোনো হাতই নেই তাদের। সব স্রষ্টার ইচ্ছা, তিনি যাকে ইচ্ছে তাকে সেই গোত্রের ভ্রুণ করে পাঠিয়েছেন।
 
মিয়ানমারের বর্বোরচিত অমানুষিকতার পক্ষে সায় দিয়েছে রাশিয়া আর চীন, প্রকাশ্য সমর্থন দিয়েছে ভারত। গৌতম বুদ্ধকে যদি মাত্র একবারের জন্য জীবিত পেতাম, জিজ্ঞাসা করতাম, ‘অহিংসই পরম ধর্ম। এটা আপনি বলেছিলেন। এই সময়ে, এই রুক্ষ সময়ে আপনি তা মানেন?
আধো চোখ বুজে থাকা শুদ্ধ আত্মার বুদ্ধ আধো হাত উঁচু করে বলতেন, ‘হাঁ, আমি তা আগের মতোই মানি। কিন্তু অস্ত্র বিক্রির মোহ আর প্রতিযোগিতা মানুষের জীবনকে বড়ই ঠুনকো বানিয়ে ফেলেছে, মানবতা পালিয়েছে, মনুষ্যত্ব হারিয়ে গেছে চিরতরে।’
 
‘তাই বলে চীন ভারত রাশিয়ার সর্বমোট তিনশ কোটি মানুষই এমন?’
স্মিত হাসতেন বুদ্ধ, ‘তুমি কেবল তাদের কথাই বলছো কেন? আরো একশ কোটি মানুষ নিয়ে তো ধনশালী বিভিন্ন মুসলিম দেশ রয়েছে, তাদের কথা বলছো না কেন?’
চোখ ছলছল করে উঠবে আমার, মাথা নিচু হয়ে যাবে নিমিষে।
 
–সুমন্ত আসলাম, উপন্যাসিক।
সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!