একুশে পদক পাচ্ছেন সুব্রত বড়ুয়া

বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ সংগীত পরিচালক ও সুরকার শেখ সাদী খান, গায়ক খুরশীদ আলম, লেখক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদিসহ ২১ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি ২০১৮ একুশে পদক পাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে রাষ্ট্রীয় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পদকপ্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ করেছে। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে এ পদক তুলে দেবেন।

এবছর ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে দেশের বৌদ্ধদের মাধ্যে সুব্রত বড়ুয়া এ গৌরবময় পদক পেতে যাচ্ছেন।

কথাসাহিত্যিক ও বিজ্ঞানলেখক সুব্রত সুব্রত বড়ুয়ার জন্ম চট্টগ্রাম জেলার ফটিকছড়ি উপজেলার অন্তর্গত ছিলোনীয়া গ্রামে, ১৯৪৬ সালে। নিজ গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাঁর শিক্ষাজীবনের সূচনা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পর শিক্ষকতার মাধ্যমে তাঁর কর্মজীবন শুরু। বাংলা একাডেমিতে যোগদান ১৯৭০ সালে। ২০০২ সালে অবসর গ্রহণ। লেখালেখির সূচনা ছাত্রজীবনে। কবিতা, গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ এবং বিজ্ঞানবিষয়ক রচনা-সাহিত্যের প্রায় সব শাখাতেই পদচারণা রয়েছে তাঁর। তাঁর লেখা বইগুলোর মধ্যে রয়েছে-

গল্প : জোনাকি শহর, কাচপোকা, অনধিকার, আত্মচরিত ও অন্যান্য গল্প, তৃণা;

উপন্যাস : মোহাম্মদ আবদুল জব্বার : জীবন ও কর্ম, ধলপরে;

কবিতা : হলুদ বিকেলের গান, কবিতা সংগ্রহ; জীবনী : দস্তয়েভস্কি, শহীদুল্লা কায়সার, অশোক বড়য়া ইত্যাদি।

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন ১৯৮৩ সালে। চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান পরিষদ থেকে পেয়েছেন স্বর্ণপদক (১৯৯৮)।

এবছর যে ২১জন একুশে পদক পাচ্ছেন:

ভাষা আন্দোলন: আ. জা. ম. তকীয়ুল্লাহ (মরণোত্তর) ও অধ্যাপক মির্জা মাজহারুল ইসলাম।

শিল্পকলা: সঙ্গীতে শেখ সাদী খান, সুজেয় শ্যাম, ইন্দ্র মোহন রাজবংশী, মো. খুরশীদ আলম, মতিউল হক খান জিতেছেন। এছাড়া নৃত্যে বেগম মীনু হক (মীনু বিল্লাহ), অভিনয়ে হুমায়ুন ফরিদী (হুমায়ুন কামরুল ইসলাম), নাটকে নিখিল সেন (নিখিল কুমার সেনগুপ্ত), চারুকলায় কালিদাস কর্মকার, আলোকচিত্রে গোলাম মুস্তাফা মনোনীত হয়েছেন।

সাংবাদিকতা: সাংবাদিকতা একুশে পদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন রণেশ মৈত্র।

গবেষণা: গবেষণায় মনোনীত হয়েছেন ভাষা সৈনিক প্রফেসর জুলেখা হক।

অর্থনীতি: ড. মইনুল ইসলাম, সমাজসেবায় ইলিয়াস কাঞ্চন।

ভাষা ও সাহিত্য: সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম খান (কবি হায়াৎ সাইফ), সুব্রত বড়ুয়া, রবিউল হুসাইন এবং মরহুম খালেকদাদ চৌধুরী।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার হচ্ছে একুশে পদক। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ গত বছরের ৮ আগস্ট সংশোধিত জাতীয় পুরস্কার/পদক সংক্রান্ত নির্দেশাবলীতে স্বাধীনতা পুরস্কার, একুশে পদক, বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার, বেগম রোকেয়া পদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কারের অর্থ বৃদ্ধি করে।

নীতিমালা অনুযায়ী, নির্বাচিত প্রত্যেককে এককালীন নগদ দুই লাখ টাকাসহ ৩৫ গ্রাম ওজনের একটি স্বর্ণপদক, রেপ্লিকা ও একটি সম্মাননাপত্র দেয়া হয়।

সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে থেকে এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

Ads

Recommended For You

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!